মাশরাফির ব্রেসলেট-জার্সির টাকায় হচ্ছে হাসপাতাল মাশরাফির ব্রেসলেট-জার্সির টাকায় হচ্ছে হাসপাতাল – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর প্রতিবেদক :: মহামারি করোনাভাইরাসে বিপাকে পড়া মানুষদের সাহায্যার্থে চলতি বছরের মার্চে নিজের দেড় যুগের সঙ্গী একটি ব্রেসলেটকে নিলামে তুলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক এই অধিনায়কের ব্রেসলেটটি বিক্রি হয় ৪২ লাখ টাকায়। দেশের আর্থিক খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন বিএলএফসিএ ব্রেসলেটটি কিনে নেয়। সহযোগিতায় ছিল আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইপিডিসি।

 

ব্রেসলেটটি কিনে নেওয়ার পর মাশরাফিকেই উপহার প্রদান করে বিএলএফসিএ। ব্রেসলেট বিক্রির টাকা চলে যায় মাশরাফিরই হাতে গড়া সমাজসেবামূলক প্রতিষ্ঠান ‘নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন’-এর তহবিলে।

 

মাশরাফির ব্রেসলেট বিক্রির টাকা দিয়ে এবার তৈরি হবে ১০ শয্যাবিশিষ্ট বিশেষায়িত হাসপাতাল। এমনটাই ঘোষণা দিয়েছেন নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম অনিক। শুক্রবার নড়াইল শহরের মহিষখোলায় এক অনুষ্ঠানে এই ঘোষণা দেন তিনি।

 

অবশ্য শুধু ব্রেসলেট বিক্রির টাকায় হাসপাতাল হচ্ছে না, এর সাথে মাশরাফির একটি জার্সি বিক্রি থেকে প্রাপ্ত ২৫ লাখ টাকাও যুক্ত হচ্ছে।

 

নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের তৃতীয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে আলোচনা সভা ও কেক কাটা হয়। এতে নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের সহ-সভাপতি ও নড়াইল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শামীমুল ইসলাম, মাশরাফির বাবা গোলাম মুর্তজা স্বপন উপস্থিত ছিলেন।

 

অনুষ্ঠানে তরিকুল ইসলাম অনিক বলেন, জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও নড়াই-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মুর্তজার ব্রেসলেট বিক্রির ৪২ লাখ টাকা শুধু নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকছে না। ফাউন্ডেশনের অ্যাকাউন্টে জমা হয়েছে ২৭ লাখ টাকা। নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন এবং আলতাব হোসেন ও আখতারুন্নেছা ট্রাস্টের সহায়তায় এই অর্থ একটি বিশেষায়িত হাসপাতাল নির্মাণে খরচ করা হবে। হাসপাতালটি হবে ১০ শয্যাবিশিষ্ট।

 

তিনি জানান, এ হাসপাতালে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা স্বল্প খরচে সাধারণ মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করবেন। বর্তমানে সরকারের অনুমোদন পাওয়ার অপেক্ষায় আছে হাসপাতালটি। অনুমোদন পেলেই শুরু হবে হাসপাতাল নির্মাণের কাজ।

 

নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক জানান, ব্রেসলেট বিক্রির বাকি টাকায় কর্মহীন হয়ে পড়া খেলোয়াড়দের সহায়তা করা হয়েছে। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে যেসব স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন কাজ করছে, তাদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।

 

মাশরাফির বিন বাবা গোলাম মুর্তজা স্বপন বলেন, শুধু যে ব্রেসলেট বিক্রিরে টাকায় হাসপাতাল হবে, তা নয়। মাশরাফির একটি জার্সিও নিলামে তোলা হয়েছিল। জার্সিটি আমেরিকাপ্রবাসী এক বাংলাদেশি ২৫ লাখ টাকায় কিনে নিয়েছেন। ওই টাকাও নড়াইলের উন্নয়ন ও হাসপাতাল তৈরির কাজে ব্যয় হবে।

 

মাশরাফি বিন মুর্তজার উদ্যোগে ২০১৭ সালের ৪ সেপ্টেম্বর আত্মপ্রকাশ ঘটে ‘নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন’-এর। মাশরাফি এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান। সংগঠনটি ইতোমধ্যে গোটা নড়াইলে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে এর ইতিবাচক কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে।

শেয়ার করুন :