২০১১ বিশ্বকাপ ফাইনাল বিক্রি হয়নি: পুলিশ ২০১১ বিশ্বকাপ ফাইনাল বিক্রি হয়নি: পুলিশ – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর ডেস্ক :: ২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনাল ‘বিক্রি’র অভিযোগের তদন্ত শেষ করেছে শ্রীলঙ্কান পুলিশ। তাঁরা বলছে, তদন্তে ফাইনাল ‘বিক্রি’ হওয়ার কোনো ‘প্রমাণ মিলেনি’।

 

শ্রীলঙ্কান পুলিশের এক মুখপাত্র শুক্রবার সংবাদমাধ্যমকে এই তথ্য জানিয়েছেন।

 

তিনি বলেন, ‘যাদেরকে আমরা ডেকেছিলাম (জিজ্ঞাসাবাদের জন্য), তাঁদের ব্যাখ্যায় আমরা সন্তুষ্ট। সুতরাং, তদন্ত এখন বন্ধ।’

 

২০১১ বিশ্বকাপ জিতেছিল ভারত। দেশটির মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড় স্টেডিয়ামে ফাইনালে শ্রীলঙ্কা আগে ব্যাট করে ৬ উইকেটে করে ২৭৪ রান। সেঞ্চুরি করেন জয়াবর্ধনে। ভারত ১০ বল আর ৬ উইকেট হাতে রেখে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায়। সর্বোচ্চ ৯৭ রান করেন গৌতম গম্ভীর, অধিনায়ক এম এস ধোনি করেন ৯১* রান। লঙ্কানদের বাজে বোলিং আর ফিল্ডিংয়ে কাজে লাগিয়ে বিশ্বকাপ নিজেদের করে নিয়েছিলেন শচীন-ধোনিরা।

 

ফাইনাল ম্যাচে একাদশে ৪টি পরিবর্তন আনে শ্রীলঙ্কা। গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে একসাথে এতো পরিবর্তন অনেকেরই বিস্ময়ের কারণ হয়েছিল।

 

বিশ্বকাপ ফাইনাল নিয়ে গোয়েন্দাদের জেরার মুখে থারাঙ্গা

বিশ্বকাপের ‘পাতানো ফাইনাল’ তদন্তে শ্রীলঙ্কা

 

গেল ১৮ জুন শ্রীলঙ্কার সাবেক ক্রীড়ামন্ত্রী মাহিন্দানন্দ আলুথগামাগে অভিযোগ করেন, ২০১১ বিশ্বকাপ ফাইনাল ভারতের কাছে ‘বিক্রি করে দিয়েছিল’ শ্রীলঙ্কা। এর সাথে ক্রিকেটারদের কেউ কেউ জড়িত থাকতে পারেন বলে ইঙ্গিত দেন তিনি। তবে কয়েকদিন পরেই ভোল পাল্টে আলুথগামাগে বলেন, তিনি ওই ফাইনাল নিয়ে কেবল সন্দেহ পোষণই করছেন।

 

তবে অভিযোগ ওঠার পর শ্রীলঙ্কার ওই সময়কার অধিনায়ক কুমার সাঙ্গাকারা আর ব্যাটিংস্তম্ভ মাহেলা জয়াবর্ধনে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। তাঁরা সাবেক ক্রীড়ামন্ত্রীর কাছে প্রমাণও দাবি করেন। এছাড়া ১৯৯৬ বিশ্বকাপজয়ী তারকা ও ওই বিশ্বকাপের সময়কার লঙ্কান প্রধান নির্বাচক অরবিন্দ ডি সিলভা ‘ক্রিকেটের স্বার্থে’ এবং ভারতীয় গ্রেট শচীন টেন্ডুলকারের একমাত্র বিশ্বকাপ জয়ের ‘মহিমাকে অক্ষুণ্ন রাখতে’ অভিযোগটি তদন্তের দাবি জানান।

 

তদন্তে নামে লঙ্কান পুলিশের ‘স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন ইউনিট (এসআইইউ)’। গেল সপ্তাহে বক্তব্য নেওয়া হয় আলুথগামাগের। এরপর অরবিন্দ ডি সিলভা, কুমার সাঙ্গাকারা ও উপুল থারাঙ্গার বক্তব্য রেকর্ড করে তাঁরা।

 

শুক্রবার মাহেলা জয়াবর্ধনে জিজ্ঞাসাবাদ করার কথা ছিল। কিন্তু এর আগেই তদন্ত সমাপ্তের ঘোষণা দিল দেশটির পুলিশ।

 

লঙ্কান পুলিশের ওই মুখপাত্র আরো বলেন, ‘যাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে, তাঁরা খুব সুন্দরভাবেই সবগুলো প্রশ্নের উত্তর এবং ব্যাখ্যা দিয়েছেন। বিশ্বকাপের ফাইনালে কেন স্কোয়াডে পরিবর্তন আনা হয়েছিল, সে ব্যাখ্যাও সুন্দরভাবে দেয়া হয়েছে। কোনো ধরনের ফিক্সিং কিংবা ভিন্ন কিছুর সঙ্গে জড়িত- এমন কোনো কিছুরই ইঙ্গিত পাইনি আমরা।’

 

এদিকে, আইসিসির দুর্নীতি বিরোধী ইউনিটের জেনারেল ম্যানেজার অ্যালেক্স মার্শাল বলছেন, আইসিসি ২০১১ বিশ্বকাপের ফাইনাল নিয়ে অভিযোগের বিষয়ে কোনো প্রমাণ পাননি।

 

প্রসঙ্গত, শ্রীলঙ্কায় ম্যাচ ফিক্সিং এখন ফৌজদারি অপরাধ। এর জন্য ১০ বছর পর্যন্ত জেল ও ১০ কোটি রুপি জরিমানা হতে পারে।

শেয়ার করুন :