হকি ফেডারেশন থেকে বাদ ‘ক্যাসিনো সাঈদ’ হকি ফেডারেশন থেকে বাদ ‘ক্যাসিনো সাঈদ’ – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর প্রতিবেদক :: বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক মমিনুল হক সাঈদকে। ফেডারেশনের সভাপতি বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল মাশিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত ফেডারেশনের পাঁচ সহ-সভাপতি এবং এক নম্বর যুগ্ম সম্পাদককে নিয়ে আলোচনা করে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

 

গেল বছরের সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশে ‘শুদ্ধি অভিযান’ শুরু হয়। ওই সময়ে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘের সভাপতি মমিনুল হক সাঈদের ক্যাসিনো সংশ্লিষ্টতার তথ্য বেরিয়ে আসে। সংবাদমাধ্যমগুলোতে প্রকাশিত হয় তাঁর চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজির নানা তথ্য। সর্বত্র তিনি পরিচিতি পান ‘ক্যাসিনো সাঈদ’ হিসেবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী খুঁজতে শুরু করে সাঈদকে। এরপর গা ঢাকা দেন মমিনুল হক সাঈদ। এখন অবধি তাঁর অবস্থানের সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য মিলছে না।

 

মমিনুল হক সাঈদ বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক। গেল বছরের ৬ মে হকির নতুন নির্বাচিত কমিটি দায়িত্ব নিয়েছিল। শুরুতে কিছুদিন ফেডারেশনে যাওয়া-আসা করলেও ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের পর লাপাত্তা হন সাঈদ। দীর্ঘ সাত মাস ধরে ফেডারেশনে যাচ্ছেন না তিনি। এমনকি কার্যনির্বাহী কমিটির টানা চারটি সভায়ও অনুপস্থিত ছিলেন সাঈদ।

 

হকি ফেডারেশনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, কোনো কর্মকর্তা টানা তিনটি নির্বাহী কমিটির সভায় অনুপস্থিত এবং অনুমতি ছাড়া ছয় মাসের বেশি বিদেশে অবস্থান করলে তিনি পদ হারাবেন।

 

দীর্ঘদিন ধরে ফেডারেশনে না আসায় ও সভা অনুপস্থিত থাকায় মমিনুল হক সাঈদের ঢাকাস্থ বাসায় গেল ১৫ জুলাই চিঠি পাঠানো হয় ফেডারেশনের পক্ষ থেকে। চিঠিটি তার ইমেইলেও প্রেরণ করা হয়।

 

বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইউসুফ ওই সময় বলেছিলেন, ‘নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক মমিনুল হক সাঈদ দীর্ঘদিন ধরে ফেডারেশনে অনুপস্থিত। নিয়মানুযায়ী তাঁর অবস্থান জানতে চেয়ে আমরা চিঠি ও ইমেইল পাঠিয়েছি। ফেডারেশনের সভাপতির (বিমান বাহিনীর প্রধান) নির্দেশেই চিঠি পাঠানো হয়েছে।’

 

কিন্তু চিঠির জবাব না দিয়ে সাঈদ উল্টো আইনি নোটিশ পাঠান ফেডারেশনকে। এবার তাকে অব্যাহতি দেওয়া হলো। এই সিদ্ধান্ত সাঈদ ও জাতীয় ক্রীড়া পরিষদকে জানিয়ে দেবে ফেডারেশন।

শেয়ার করুন :