রোনালদোর নতুন হুংকার রোনালদোর নতুন হুংকার – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর ডেস্ক :: বয়স তাঁর ৩৫। ৩৬ হতে বাকি নেই খুব বেশি। কিন্তু মাঠে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পারফরম্যান্স দেখে বুঝার উপায় নেই কিছুই। মাঠে বয়সকে স্রেফ একটা সংখ্যা হিসেবেই প্রমাণ করে চলেছেন সিআর৭।

 

স্পেনের রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে বছর দুয়েক আগে রোনালদো পাড়ি জমান ইতালির তুরিনের দল জুভেন্টাসে। তাঁর জন্য চ্যালেঞ্জ ছিল, জুভেন্টাসকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ এনে দেওয়া। ১৯৯৫-৯৬ মৌসুমে সর্বশেষ চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতেছিল জুভেন্টাস। এই দীর্ঘ খরা কাটাতেই ২০১৮ সালে তাঁরা ১০ কোটি ইউরো ট্রান্সফার ফির বিনিময়ে পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলারকে দলে ভেড়ায়। দুই মৌসুমে ঘরোয়া ফুটবলের সর্বোচ্চ শিরোপা জিতলেও পর্তুগিজ তারকা ইউরোপ-সেরার ট্রফি ছুঁতে পারেন নি।

 

কিন্তু এতে ভেঙে পড়ছেন না রোনালদো। নেই তাঁর মাঝে হতাশাও। বরঞ্চ নতুন প্রত্যয়ে হুংকার ছুড়েছেন সময়ের অন্যতম সেরা ফুটবলার। বলছেন, ইতালি ও ইউরোপসেরা তো হতে চান-ই, সঙ্গে জয় করতে চান বিশ্ব।

 

রোনালদোর হুংকার যে মিছে কিছু নয়, সে অনেকবারই প্রমাণ দিয়েছেন তিনি। ২০১৯-২০ মৌসুমের কথাই যদি ধরা হয়, জুভেন্টাসের সেরা পারফর্মার ছিলেন তিনি। সিরি আ’ লিগে করেন ৩৩ ম্যাচে ৩১ গোল। রোনালদোর ক্যারিশমাতেই অনেক ম্যাচে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে তুরিনের দলটি।

 

চ্যাম্পিয়ন্স লিগেও দারুণ খেলেছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। শেষ ষোলোয় অলিম্পিক লিওঁর বিপক্ষে ম্যাচে যেদিন জুভেন্টাস বিদায় নেয়, সে ম্যাচেও জোড়া গোল করেছিলেন তিনি। জয় পেয়েছিল তাঁর দলও। কিন্তু অ্যাওয়ে গোলের (জুভেন্টাসের মাঠে গোল করার) সুবিধা নিয়ে কোয়ার্টারে ওঠে যায় লিওঁ।

 

২০২০-২১ মৌসুম শুরু হচ্ছে শিগগিরই। নতুন মৌসুমকে সামনে রেখে রোনালদো নতুন স্বপ্নের বারতা জানিয়ে দিয়েছেন সতীর্থদের।

 

ইনস্টাগ্রামে রোনালাদো বলছিলেন, ‘জুভেন্টাসের হয়ে তৃতীয় মৌসুমের জন্য প্রস্তুত হচ্ছি। আমার আকাঙ্ক্ষা ও উচ্চাশা আছে আগের মতোই অনেক ওপরে। গোল, জয়, অঙ্গীকার, নিবেদন ও পেশাদারিত্ব।’

 

‘আমার সামর্থ্যের সবটুকু দিয়ে এবং সতীর্থ ও জুভেন্টাসের সকল কর্মীদের মূল্যবান সাহায্য নিয়ে আমরা আবার ইতালি, ইউরোপ ও বিশ্ব জয়ের লক্ষ্যে কঠোর পরিশ্রম করবো।’

 

রিয়াল মাদ্রিদে ৯ বছরের ক্যারিয়ার রোনালদোর জন্য ছিল সাফল্যে মোড়ানো। চারটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ আর দুটি লা লিগার শিরোপাসহ অনেক রেকর্ড গড়েছেন রিয়ালে। সামনের দিনেও চান নতুন রেকর্ড গড়তে।

 

‘রেকর্ড ভাঙা, বাধা উৎরানো, শিরোপা জেতা ও ব্যক্তিগত লক্ষ্য পূরণ। আরও কিছু করা এবং আরেকটু ভালো করা। আরও ওপরে উঠতে হবে এবং সামনের সব চ্যালেঞ্জে জয়ী হতে হবে।’

শেয়ার করুন :