রকিবুল হাসানকে নিয়ে হচ্ছে বায়োপিক রকিবুল হাসানকে নিয়ে হচ্ছে বায়োপিক – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর প্রতিবেদক :: বাংলাদেশের চলচ্চিত্রাঙ্গনে বায়োপিক (জীবনী নির্ভর সিনেমা) তৈরির রেওয়াজ নেই। অথচ প্রতিবেশী দেশ ভারত, পাকিস্তানে অহরত বায়োপিক হচ্ছে বিখ্যাত ব্যক্তিদের নিয়ে। খেলাধুলার বিষয়টি সামনে আনল, ভারতে মহেন্দ্র সিং ধোনিকে নিয়ে বায়োপিক হয়েছে। পাকিস্তানে শহিদ আফ্রিদিকে নিয়ে বায়োপিক হচ্ছে।

 

এবার বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও মুক্তিযোদ্ধা রকিবুল হাসানকে নিয়ে হচ্ছে বায়োপিক। দেশের কোনো ক্রীড়াবিদকে নিয়ে এটিই হবে প্রথম বায়োপিক।

 

রকিবুল হাসানকে নিয়ে বায়োপিকের কাহিনী ও চিত্রনাট্য লিখছেন ক্রীড়া সাংবাদিক দেবব্রত মুখোপাধ্যায়। পরিচালনা করবেন বান্টি আফজাল, প্রযোজনায় হাফ প্যান্ট সিনেমা ফ্যাক্টরির নির্বাহী প্রযোজক রুমানা শারমিন।

 

বায়োপিক নির্মাণের কাজ আগামী বছরের শুরুর দিকে করতে চান বলে জানিয়েছেন দেবব্রত মুখোপাধ্যায়। তবে বায়োপিকটির নাম পরে জানানো হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

 

বায়োপিক নিয়ে রকিবুল হাসান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘উদ্যোগটি আমি অত্যন্ত ইতিবাচক হিসেবেই দেখছি। ক্রিকেট ব্যক্তিত্ব বা যেকোন মানুষ হোক,তার কর্মকাণ্ড নিয়ে যদি কোনো চলচ্চিত্র নির্মিত হয় বা ছায়াছবির মধ্য দিয়ে মানুষের সামনে নিয়ে আসা হয়, সেটা তাঁর জন্য অনেক বড় পুরস্কার। আমি বলবো, এটা একটা স্বীকৃতি এবং আমার জন্য এটা অনেক বড় একটা প্রাপ্তি।’

 

উদ্যোগটি যেন থমকে না যায়, সেটাও মনে করিয়ে দিলেন রকিবুল, ‘আমি চাইবো যেন এটা হয়। বাংলাদেশে তো অনেক সময় অনেক সুন্দর উদ্যোগ নেওয়া হয়, কিন্তু কোন না কোন কারণে আবার থেমে যায়। সেটা যেন না হয়।’

 

বায়োপিকের কাহিনী ও চিত্রনাট্যকার দেবব্রত মুখোপাধ্যায় সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘এটা আমার কাছে সবার সম্মিলিত একটি কাজের মতো মনে হচ্ছে। সবাই যেভাবে ফোন দিচ্ছে, উৎসাহ দিচ্ছে, প্রেরণা দিচ্ছে, নিঃসন্দেহে এটা একটা মাইলফলক। ভাবনাটা অনেকটা আমাদের যৌথ ভাবনাই বলা যায়। এখানে পরিচালক হিসেবে যিনি কাজ করছেন, বান্টি আফজাল, উনি আমি বন্ধু মানুষ বলা যায়। দীর্ঘদিন আমরা বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আড্ডা দেই। উনি আমাদের আড্ডায় প্রায়ই একটা কথা বলেন আমাদের বীরদের সঠিক সম্মান দেই না। এ প্রসঙ্গে একদিন রকিবুল ভাইয়ের কথা হলো।’

 

তিনি যোগ করেন, ‘‘এখানে আমি আরেকটা কথা বলে রাখতে চাই। ‘মাশরাফি’ (মাশরাফি বিন মুর্তজাকে নিয়ে লেখা) বই লেখার সময় আমি যখন তাঁকে হিরো বললাম, তিনি বললেন, ‘আমি হিরো আমি না, হিরো হচ্ছেন ডাক্তাররা, কৃষকরা। আর আমাদের ক্রিকেটের সত্যিকারের হিরো যদি কেউ থেকে থাকেন সেটা রকিবুল ভাই। কারণ উনি যুদ্ধ করেছেন। তিনি শুধু খেলেই সন্তুষ্ট থাকেন নি ‘ সেই ভাবনা থেকেই আমি ও আমার পরিচালক একমত হয়েছিলাম যে আমাদের এখানে কাজ করা উচিত।’’

 

‘আমরা সিদ্ধান্ত নিলাম, জাতিকে জানানোর দরকার যে উনি (রকিবুল) কতো বড় কাজ করেছেন। মাথার উপর পরোয়ানা নিয়েও জয় বাংলা স্টিকার সম্বলিত ব্যাট নিয়ে খেলতে নেমে গেছেন, বাবার বন্দুক চুরি করে নিয়ে সম্মুখযুদ্ধ চলে গেছেন। সেই তুলনায় আমরা তাঁকে ছোট একটি সম্মান দিচ্ছি।’

শেয়ার করুন :