ম্যাচ পাতানোর অধিকাংশ ঘটনায় ভারত জড়িত: আইসিসি ম্যাচ পাতানোর অধিকাংশ ঘটনায় ভারত জড়িত: আইসিসি – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর ডেস্ক :: ম্যাচ পাতানোর ঘটনা ক্রিকেটে কলঙ্কজনক এক অধ্যায়। ইদানিং হরহামেশা ম্যাচ পাতানোর কথা শোনা যায়। বিশেষ করে ভারতের ক্রিকেটে ম্যাচ পাতানো, স্পট ফিক্সিংয়ের অনেক ঘটনাই প্রকাশ্যে এসেছে।

 

এবার খোদ আইসিসির দুর্নীতিবিরোধী ইউনিট (এসিইউ) বলছে, তাঁরা যেসব ম্যাচ পাতানোর ঘটনার তদন্ত করছেন, তন্মধ্যে সিংহভাগ ঘটনাই ভারত সংশ্লিষ্ট।

 

ক্রীড়া আইন ও নৈতিকতা বিষয়ক এক ক্লাসে আইসিসির দুর্নীতিবিরোধী ইউনিট (এসিইউ)-এর তদন্ত সমন্বয়ক স্টিভ রিচার্ডসন বলেন, ‘ম্যাচ পাতানোর ৫০টি ঘটনা নিয়ে আমরা তদন্ত করছি। অধিকাংশ অভিযোগই ভারত সংশ্লিষ্ট।’

 

তিনি বলেন, জুয়াড়িরা এখন ঘরোয়া ক্রিকেটের নিচু স্তরের দিকেও দৃষ্টি দিচ্ছে।

 

স্টিভ রিচার্ডসন দাবি করছেন, তাঁদের কাছে খেলোয়াড়দের বিপথে টেনে নেওয়াদের নামও আছে।

 

তিনি বলেন, ‘ম্যাচ পাতানো বা ফিক্সিংয়ে খেলোয়াড়েরা হলো এই চেইনের শেষ যোগসূত্র। আসল সমস্যা হলো যারা এই অপরাধের আয়োজক। যারা খেলোয়াড়দের টাকা দিচ্ছে, যারা খেলার বাইরে। আমি এখনই এমন ৮ জনের নাম ভারতের পরিচালনা সংস্থার কাছে দিতে পারি, যারা নিয়মিত খেলোয়াড়দের এভাবে বিপথে টেনে নিচ্ছে।’

 

বাংলাদেশের ক্রিকেটে করোনার থাবা

 

আইসিসির দুর্নীতিবিরোধী ইউনিট (এসিইউ) বলছে, ভারতে ম্যাচ পাতানো বন্ধ করতে হলে এ অপরাধকে ফৌজদারি আইনে অপরাধ হিসেবে গণ্য করতে হবে।

 

এক্ষেত্রে শ্রীলঙ্কার উদাহরণ দিয়েছেন স্টিভ রিচার্ডসন, ‘শ্রীলঙ্কা প্রথম দেশ হিসেবে ম্যাচ পাতানোর আইন এনেছে। এ কারণে শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট এখন আগের চেয়ে বেশি সুরক্ষিত। অস্ট্রেলিয়ার ক্ষেত্রে আমরা আগ থেকেই সতর্ক। বর্তমানে ভারতে কোনো আইন নেই, ফলে ওরা (দুর্নীতি বিরোধী ইউনিট) এক হাত বাঁধা অবস্থায় কাজ করছে।’

 

ভারতে ২০১৩ সালে আইপিএলে ম্যাচ পাতানো ও স্পট ফিক্সিংয়ের ঘটনা ফাঁস হয়েছিল। এ নিয়ে তখন ব্যাপক হইচই হয়। কিছুদিন আগেই ম্যাচ পাতানোর অভিযোগে কর্ণাটক লিগ বাতিল হয়েছে।

শেয়ার করুন :