বার্সেলোনায় কোন্দলের গুঞ্জন! বার্সেলোনায় কোন্দলের গুঞ্জন! – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর ডেস্ক :: লা লিগায় শিরোপা জয়ের দৌড়ে খানিকটা পিছিয়ে পড়েছে বার্সেলোনা। তাঁদেরকে টপকে লিগে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে রিয়াল মাদিদ্র। জিনেদিন জিদানের দল ২ পয়েন্ট এগিয়ে আছে। লিগের শেষ দিকে এসে এই দুই পয়েন্ট এগিয়ে থাকা অনেব বড় বিষয় বলে বিশ্লেষকদের অভিমত।

 

এরকম অবস্থায় বার্সা শিবিরে শোনা যাচ্ছে কোন্দলের গুঞ্জন। বার্সার কোচ কিকে সেতিয়েন কোন্দলের কথা অস্বীকার করলেও তিনি বলছেন, কিছু ক্ষেত্রে কোচ ও খেলোয়াড়রা ‘একমত নন’। মেসির একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর সেই গুঞ্জন আরো যেন পোক্ত হতে শুরু করেছে।

 

এবারের মৌসুমে অ্যাওয়ে ম্যাচে পয়েন্ট হারাচ্ছে বার্সেলোনা। লিগে তাঁরা ৩২ ম্যাচ খেলে হেরেছে পাঁচটিতে, ছয়টিতে করেছে ড্র। এই পয়েন্ট হারানো ১১ ম্যাচের মধ্যে একটিমাত্র ম্যাচ নিজেদের ঘরের মাঠে খেলে বার্সেলোনা। গেল ডিসেম্বরে সেই ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করে মেসির দল।

 

আর বাকি ১০টি ম্যাচেই প্রতিপক্ষের মাঠে ৫ বার হার আর ৫ বার ড্র করেছে বার্সা।

 

গেল শনিবার রাতে সেল্টা ভিগোর বিপক্ষে তাঁদের মাঠে ২-২ গোলে ড্র করেন সুয়ারেজরা। ওই ম্যাচে দুটি গোল করে দলকে রক্ষা করেন উরুগুয়ের এই স্ট্রাইকার।

 

ম্যাচের পর সুয়ারেজের কাছে প্রশ্ন ছিল, বার্সা কেন অ্যাওয়ে ম্যাচে বারবার পয়েন্ট হারাচ্ছে?

 

সুয়ারেজ কিছুটা তপ্ত সুরে জবাব দেন, ‘এর উত্তরের জন্য কোচদের প্রশ্ন করতে হবে আপনাদের। কারণ, তারা এগুলো পর্যালোচনা করেন।’

 

তাঁর এমন তপ্ত মন্তব্যের পর গুঞ্জনের ডালপালা মেলতে শেুরু করে।

 

পরে বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন করা হয় বার্সা কোচ কিকে সেতিয়েনকে।

 

তিনি বলেন, ‘এ সব ঘটেই থাকে। আমি এগুলোকে খুব একটা গুরুত্ব দেই না। ম্যাচ জিততে না পারলে অনেকে পরিস্থিতি আরও ঘোলাটে করার চেষ্টা করে। আমাদের আসল ভাবনা দলের স্বাভাবিক আবহ ও খেলোয়াড়দের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে, যা ভালো আছে। এটা সত্যি যে, কিছু বিষয়ে আমরা একমত নই। তবে এমন কিছু ঘটেনি যে আলাদা করে বলতে হবে।’

 

কিকে সেতিয়েন এর আগে রিয়াল বেটিসের কোচ ছিলেন। বার্সার মতো বড় দলকে সামলানোর দায়িত্ব পালন করেন নি তিনি। গেল জানুয়ারিতে তাঁকে যখন দায়িত্ব দেওয়া হয়, তখন এ নিয়েও প্রশ্ন ওঠেছিল।

 

এ প্রসঙ্গে কিকে সেতিয়েন বলছেন, ‘মানতে কোনো সমস্যা নেই যে, এই মানের দল আমার কাছে নতুন এবং আমি এখনও শিখছি। দলের ভালোর জন্য খেলোয়াড়সহ আমাদের সবাইকে নতুন করে ভাবতে হবে। কারোর পক্ষেই সে যা চায়, তার সবকিছু করা সম্ভব না।’

 

বার্সাকে টপকালো রিয়াল, অসাধারণ বেনজেমা

 

কিন্তু পরক্ষণেই সেতিয়েন যা বললেন, তা যেন আগুনে ঘি ঢাললো।

 

তিনি বলেন, ‘এটা একটা দল এবং সবাইকে সেভাবে ভাবতে হবে। কখনও কখনও দলের ভালোর জন্য নিজের ব্যক্তিগত চাওয়া ত্যাগ করতে হবে। আর এটাই আমাদেরকে জয় এনে দিবে।’

 

প্রশ্ন ওঠছে, তাহলে কী বার্সা শিবিরে খেলোয়াড়রা ইদানিং ‘একটা দল’ হিসেবে নিজেদের ভাবছে না? কেউ কী ‘ব্যক্তিগত চাওয়াকে’ বেশি প্রাধান্য দিচ্ছে?

 

এদিকে, সেল্টা ভিগোর বিপক্ষে ম্যাচের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হতে শুরু হচ্ছে। ওই ম্যাচে পানি পানের বিরতির সময় বার্সার সহকারী কোচ এদের সারাবিয়া খেলোয়াড়দের কৌশল বুঝিয়ে দিচ্ছিলেন। ওই সময়ে লিওনেল মেসি তা পাত্তা না দিয়ে অন্য দিকে মনোযোগী ছিলেন। তাঁকে সুয়ারেজ ডাকলেও কেমন অবজ্ঞার হাসি দিয়ে তিনি চলে যান দূরে।

 

এ ঘটনায় কোচিং স্টাফদের সঙ্গে খেলোয়াড়দের দূরত্বের বিষয়টি আরো যেন ঘোলা করে দিচ্ছে। সেল্টা ভিগোর বিপক্ষে ম্যাচ শেষে নাকি ড্রেসিংরুমে তর্কাতর্কিও হয়েছে।

 

এ প্রসঙ্গে কোচ কিকে সেতিয়েন বলছিলেন, ‘আমি এটাকে স্বাভাবিক মনে করি। এটা ভালো যে, মতবিনিময় হচ্ছে। এটাকে বাড়তি গুরুত্ব দিতে চাই না। জয় না পেলে সবাই উদ্বিগ্ন থাকেন। তবে সবার সঙ্গেই আমাদের সম্পর্ক ভালো। হ্যাঁ, কিছু সময়ে হয়তো আমরা একমত হই না।’

 

গুঞ্জন কিন্তু বাড়ছেই। তবে বার্সা যখন প্রতিপক্ষকে উড়িয়ে জয়ের নিশান উড়াবে, তখন হয়তো এসব গুঞ্জন স্তব্ধ হয়ে যাবে।

শেয়ার করুন :