বার্সেলোনার হোঁচট, রিয়ালের উচ্ছ্বাস! বার্সেলোনার হোঁচট, রিয়ালের উচ্ছ্বাস! – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর ডেস্ক :: ২০১৪-১৫ মৌসুমের পর সেল্টা ভিগোর মাঠ বালাইদোসে জয়ের মুখ দেখেনি বার্সেলোনা। কাল রাতে (বাংলাদেশ সময়) যে ম্যাচটি হলো, সেটিতেও ড্র করেছেন মেসিরা। শিরোপা দৌড়ে থাকতে জয়ের কোনো বিকল্প ছিল না; অথচ ম্যাচ হয়েছে ড্র। বার্সেলোনার এই হোঁচটে তাই রিয়াল মাদ্রিদের ঘরে চাপা উল্লাস থাকবে, সেটা তো অনুমিতই!

 

স্প্যানিশ লা লিগায় পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থান নিয়ে রিয়াল মাদ্রিদ আর বার্সেলোনার মধ্যে ইঁদুর-বিড়াল খেলা চলছে। আজ রিয়াল শীর্ষে ওঠছে তো কাল বার্সা। এই যেমন কাল রাতে সেল্টা ভিগোর সাথে ড্রয়ের পর বার্সা আপাতত শীর্ষে। কিন্তু ড্র করায় মূল্যবান ২ পয়েন্ট হারিয়েছে তাঁরা, পেয়েছে ১ পয়েন্ট।

 

৩২ ম্যাচে ২১ জয় আর ৬ ড্রয়ে তাঁদের পয়েন্ট ৬৯। অন্যদিকে ৩১ ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদের পয়েন্ট ৬৮। আজ রোববার তলানির দল এস্পানিওলের বিপক্ষে জয় পেলেই রিয়াল ওঠে যাবে শীর্ষে। শুধু তাই নয়, বার্সার সাথে তাঁদের পয়েন্ট ব্যবধান হবে ২! লিগের শেষ দিকে এসে ২ পয়েন্ট এগিয়ে থাকা, এর সাথে বার্সার বিপক্ষে মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে থাকা; দুইয়ে মিলে রিয়াল শিবিরে উচ্ছ্বাসের অবগাহন!

 

সেল্টা ভিগোর মাঠ বালাইদোসে স্বাগতিকদের বিপক্ষে ২-২ গোলে ম্যাচ ড্র করেছে বার্সেলোনা। সেল্টার গোল দুটি এসেছে ফিওদোর স্মোলভ ও ইয়াগো আসপাসের পা থেকে। বার্সার দুটি গোলই করেছেন লুইস সুয়ারেজ।

 

ক্যারিয়ারের ৭০০তম গোলের জন্য তিন ম্যাচ ধরে অপেক্ষায় লিওনেল মেসি। কিন্তু সেল্টার বিপক্ষেও গোলের দেখা পান নি আর্জেন্টাইন তারকা।

 

লা লিগার এবারের মৌসুমে গেল নভেম্বরে সেল্টা ভিগোর সাথে প্রথম দেখা হয় বার্সেলোনার। নিজেদের মাঠে মেসির হ্যাটট্রিকে সেল্টাকে ৪-১ গোলে হারিয়েছিল বার্সা। কিন্তু সেল্টার মাঠে গেলেই বার্সার যেন কী হয়ে যাচ্ছে গেল কয়েক মৌসুম ধরে। সর্বশেষ চার ম্যাচে সেল্টার মাঠে তিনটিতেই হেরেছেন সুয়ারেজরা! অপর ম্যাচটি হয়েছে ড্র।

 

কাল রাতের ম্যাচে শুরুতেই ভালো সুযোগ পেয়েছিল বার্সা। মেসির কর্নার থেকে দারুণ হেড নিয়েছিলেন জেরার্ড পিকে। কিন্তু সেল্টার গোলরক্ষককে সেই হেড পরাস্ত করলেও বল লাগে ক্রসবারে।

 

১৯তম মিনিটে এগিয়ে যায় বার্সা। পোস্টের ২২ গজ দূরে ফ্রি-কিক পেয়ে ডি-বক্সের ডান দিকে ফাঁকায় থাকা সুয়ারেজকে বল বাড়ান মেসি। বাধাহীনভাবে হেডে বল জালে পাঠান উরুগুয়ের স্ট্রাইকার।

 

মিনিট পাঁচেক পরে ম্যাচে সমতায় ফিরতে পারতো সেল্টা। তবে দলটির অধিনায়ক আসপাসের শট বার্সার গোলরক্ষক মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেনের আঙুল ছুঁয়ে পোস্টে লাগে। ফিরতি বলে আবারও শট নিয়েছিলেন আসপাস। কিন্তু এবার গোলরক্ষক ঠেকিয়ে দেন।

 

৫০তম মিনিটে ইভান রাকিটিচের ভুলে বল পেয়ে যান সেল্টার অধিনায়ক আসপাস। তিনি বল বাড়ান ইয়োকুসলুকে। তিনি ডি-বক্সে ঢুকে বাঁ দিকে পাস বাড়ান স্মোলোভকে। এগিয়ে আসা গোলরক্ষককে পরাস্ত করে অনায়াসে বল জালে পাঠান এই রুশ ফরোয়ার্ড।

 

৬৭তম মিনিটে ফের এগিয়ে যায় কিকে সেতিয়েনের দল বার্সেলোনা। ডি-বক্সের জটলায় মেসি বল বাড়ান সুয়ারেজকে। বাঁ পায়ের কোনাকুনি শটে ফের জাল কাঁপান সুয়ারেজ।

 

৮৮তম মিনিটে ফের সমতায় ফিরে সেল্টা। স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড আসপাস দুর্দান্ত এক ফ্রি-কিকে খুঁজে নেন বার্সার জাল।

 

ড্রয়ের হতাশায় মাঠ ছাড়েন মেসিরা।

শেয়ার করুন :