বাংলাদেশের ১২ পেসারকে ঘিরে গিবসনের পরিকল্পনা বাংলাদেশের ১২ পেসারকে ঘিরে গিবসনের পরিকল্পনা – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর প্রতিবেদক :: খুব বেশিদিন আগের কথা নয়। যখন বাংলাদেশ নিজেদের একাদশে একজনমাত্র পেসার রাখতো। বোলিং আক্রমণের বাদবাকি সবাই থাকতেন স্পিনার। কিন্তু সেই দিন কিংবা সেই রীতি বদলেছে অনেকটাই।

 

এখন একাদশে নিদেনপক্ষে দুই পেসারের দেখা মিলে। কখনো-সখনো তো তিন পেসারও দেখা যায় একাদশে!

 

তবে ‘সমস্যা’ আছে এখনও। ম্যাচে বল একটু পুরনো হতেই আক্রমণে চলে আসেন স্পিনাররা। পুরনো বলে পেসাররা বল করার সুযোগ পান খুবই কম। ফলে পুরনো বলে তাঁদের দক্ষতা নিয়ে আছে প্রশ্ন।

 

বাংলাদেশের পেস বোলিং কোচ ওটিস গিবসনও সে বিষয়টি মাথায় রেখেছেন। তিনি বলছেন, পেসাররা যদি দেশের বাইরে সাফল্য পেতে চায়, তবে পুরনো বল ব্যবহারে তাঁদেরকে দক্ষ হতে হবে। জাতীয় দল ও জাতীয় দলের আশপাশে থাকা ১২ পেসারকে নিয়ে নিজের পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছেন তিনি।

 

ক্রিকেট বিষয়ক ওয়েবসাইট ক্রিকবাজের সাথে এক সাক্ষাৎকালে ওটিস গিবসন বলেন, ‘বাংলাদেশের পেসাররা পুরনো বলে বল করার সুযোগই পায় না। বল ঘষা শুরু হতেই স্পিনারদের হাতে চলে যায় এবং তাঁরাই ইনিংস শেষ করে আসে। ঘরোয়া ক্রিকেটের দৃশ্যটাও একই। পেসাররা তাই পুরনো বলে অদক্ষ থেকে যায়। বিষয়টা তাই গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করতে হবে।’

 

অন্যথায় বিদেশের মাটিতে তথা পেস সহায়ক কন্ডিশনে দল বিপদে পড়বে বলে সতর্কবার্তা দিচ্ছেন গিবসন, ‘(বোলাররা পুরনো বলে দক্ষ) না হলে, বিদেশের মাটিতে বিপদে পড়বে দল। বিশেষ করে পেস সহায়ক কন্ডিশনে। এই জায়গায় আমাদের তাই নজর দিতেই হবে। যাত্রাটা শুরু করতে হবে ঘরোয়া ক্রিকেট থেকেই। কারণ, সেখান থেকেই পেসাররা অভিজ্ঞতা অর্জন করে।’

 

বর্তমানে বাংলাদেশের জাতীয় দল ও জাতীয় দলের আশপাশে একঝাঁক তরুণ পেসার আছেন। রুবেল হোসেন, মুস্তাফিজুর রহমান, আবু জায়েদ রাহী, আল আমিন, শফিউল ইসলাম, সাইফউদ্দিন, তাসকিন আহমেদদের সাথে এবাদত হোসেন, হাসান মাহমুদ, মুকিদুলরাও আলো ছড়াচ্ছেন।

 

বাংলাদেশের পেস আক্রমণ নিয়ে তাই দারুণ আশাবাদী ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক কোচ গিবসন, ‘প্রত্যেক দলেরই বিশেষজ্ঞ পেস আক্রমণ আছে। বাংলাদেশও এর বাইরে নয়। চম্পকা রমানায়েকে তরুণদের খেয়াল রাখছেন। আর আমাদের আল আমিন, শফিউল, সাইফউদ্দিন, হাসান মাহমুদ, মুস্তাফিজের মতো পেসার সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের জন্য হাতে আছে। টেস্টের জন্য আছে এবাদত-আবু জায়েদ-তাসকিনরা।’

 

তিনি বলছেন, তাঁর হাতে ১২ জন পেসার আছে। তাঁদেরকে ‘বিশ্বমানের করে’ তুলতে চান তিনি।

 

ওটিস গিবসন বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি, তাঁদের সেই সামর্থ্য আছে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তাঁদের সফল না হওয়ার কোনো কারণ নেই।’

 

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ২১ জানুয়ারি বাংলাদেশের নতুন পেস বোলিং কোচ হিসেবে ওটিস গিবসনের নাম ঘোষণা করে বাংলাদেশ ক্রিকে বোর্ড (বিসিবি)। এর আগে দক্ষিণ আফ্রিকান শার্ল ল্যাঙ্গাভেল্ট নিজ দেশের ডাকে বাংলাদেশের দায়িত্ব ছেড়ে দেন।

শেয়ার করুন :