বাংলাদেশের গরমে চিন্তিত নেপাল চায় ‘আত্মবিশ্বাস’ বাংলাদেশের গরমে চিন্তিত নেপাল চায় ‘আত্মবিশ্বাস’ – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর প্রতিবেদক :: নেপাল আর বাংলাদেশের আবহাওয়ার তফাৎ যথেষ্ট। হিমালয়ের দেশটির চেয়ে বঙ্গদেশে আবহাওয়া বেশ উষ্ণ। দুটি প্রীতি ম্যাচ খেলতে ঢাকায় আসা নেপাল জাতীয় ফুটবল দল তাই গরমে কাহিল।

 

তবু প্রীতি ম্যাচ দুটি নিয়ে নেপালিরা বেশ উৎফুল্ল। দীর্ঘদিন ধরে ফুটবলহীন থাকার পর এ দুই ম্যাচ দিয়ে নিজেদেরকে ‘উদ্ধুদ্ধ’ করতে চায় তারা। বাংলাদেশকে হারানো নয়, বরঞ্চ আত্মবিশ্বাস ফিরে পাওয়ার দিকেই বেশি মনোযোগ তাদের।

 

আগামী ১৩ ও ১৭ নভেম্বর বাংলাদেশ-নেপাল প্রীতি ম্যাচ দুটি হবে ঢাকায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে। এর মধ্য দিয়ে করোনায় বন্ধ থাকায় দেশের ফুটবলের দরজা ফের খুলতে যাচ্ছে। করোনাকালে নেপালও এই প্রথমবার মাঠে নামছে।

 

সোমবার শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব মাঠে অনুশীলন করে নেপাল দল।

 

সেখানেই দলটির ২৯ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড ভারত খাবাস বলেন, ‘নেপালের তুলনায় এখানকার আবহাওয়া গরম। বেশ গরম। তবে, আমরা খুবই খুশি এই দুটি প্রীতি ম্যাচ নিয়ে। মহামারীর কারণে ফুটবল পিছিয়ে পড়ছিল। এই দুটি ম্যাচ আমাদেরকে উদ্বুদ্ধ করবে।’

 

মুখোমুখি হওয়া সর্বশেষ দুটি ম্যাচেই নেপালের বিপক্ষে হেরেছে বাংলাদেশ। তবু জামাল ভুঁইয়াদের সমীহ করছেন নেপালের ৩১ বছর বয়সী মিডফিল্ডার বিক্রম লামা। বলছেন, দীর্ঘদিন পর মাঠে ফিরে আত্মবিশ্বাস ফিরে পাওয়ার কথা।

 

‘বাংলাদেশকে হারানো মূল বিষয় নয়, দীর্ঘদিন পর ফুটবলে ফেরা এবং আমাদের আগের আত্মবিশ্বাস ফিরে পাওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ। একজন ফুটবলার হিসেবে অবশ্যই আমি, আমরা যেকোনো ম্যাচ, টুর্নামেন্ট জয়ের জন্য খেলতে নামি। সবাই জিততে ভালোবাসে। আশা করি, আমরাও জিতব। তবে বাংলাদেশকে আমরা হালকাভাবে নিচ্ছি না; তাদেরকে শ্রদ্ধা করি।’

 

ঢাকায় আসার সপ্তাহখানেক আগে কাঠমন্ডুতে অনুশীলন শুরু করে নেপাল। সেখানে একে একে দলটির ৭ ফুটবলার করোনাক্রান্ত বলে শনাক্ত হন। তবে দলে যারা নতুন এসেছেন, তাদের ওপর ভরসা করছেন বিক্রম লামা।

 

‘কোভিডে সাত জন খেলোয়াড় আক্রান্ত হয়েছিল। তবে তাদের বদলি অনেক খেলোয়াড়ও আমাদের আছে, যারা দলকে সাহায্য করতে পারে এবং দলের প্রয়োজন মেটাতে পারে। আশা করি,সবকিছু ঠিকঠাক থাকবে।’

শেয়ার করুন :