‘ফাইফারে’ দুরন্ত আফ্রিদি, ওঠে এলেন সাকিবের পাশে ‘ফাইফারে’ দুরন্ত আফ্রিদি, ওঠে এলেন সাকিবের পাশে – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর ডেস্ক :: মাত্র ১৫ দিনের মধ্যে তিন তিনবার টি-টোয়েন্টিতে পাঁচ উইকেট তথা ‘ফাইফার’র দেখা পেলেন পাকিস্তানের তরুণ পেসার শাহীন শাহ আফ্রিদি। ইংল্যান্ড কিংবা পাকিস্তান, সবখানেই আলো ছড়িয়ে যাচ্ছেন এই গতি তারকা।

 

কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে পাঁচ উইকেট দখলে তিনি এখন ওঠে এসেছেন বাংলাদেশের সাকিব আল হাসানের পাশে। যদিও সাকিবের চেয়ে অনেক কম ম্যাচ খেলেছেন পাকিস্তানের তরুণ পেসার।

 

টি-টোয়েন্টি মানেই যেন ব্যাটসম্যানদের আধিপত্য, দাপট। বোলারদের কচুকাটা করে চার-ছয়ের ফুলঝুরি ছুটে ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম সংস্করণে। এই ‘ধ্বংসাত্মক’ ক্রিকেটেও উজ্জ্বল ব্যতিক্রম শাহীন শাহ আফ্রিদি।

 

গেল ২০ সেপ্টেম্বর ইংল্যান্ডের ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টে হ্যাম্পশায়ারের হয়ে মিডলসেক্সের বিপক্ষে ১৯ রানে ৬ উইকেট শিকার করেন আফ্রিদি। ছয় ব্যাটসম্যানকেই করেন বোল্ড। এর মধ্যে টানা চার বলে চার উইকেট নিয়ে গড়েন ডাবল হ্যাটট্রিকের রেকর্ডও।

 

ইংল্যান্ড থেকে দেশে ফিরেন শাহীন শাহ আফ্রিদি। পাকিস্তানে শুরু হয় ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি কাপ। তিনি খেলছেন খাইবার পাখতুনের হয়ে। প্রথম ম্যাচে নর্দার্ন পাকিস্তানের বিপক্ষে ১ উইকেট নেন। পরের ম্যাচেই বেলুচিস্তানের বিপক্ষে ২০ রানে দখল করেন ৫ উইকেট।

 

এরপর সাউদার্ন পাঞ্জাবের বিপক্ষে ১ উইকেট দখলের পর কাল সোমবার সিন্ধের বিপক্ষে ফের ‘ফাইফার’ নিয়েছেন দুর্দান্ত আফ্রিদি। ২১ রান খরচায় তাঁর শিকার ৫ উইকেট। এর মধ্যে সিন্ধের টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যানকেই করেন বোল্ড।

 

ম্যাচে সিন্ধ করেছিল ১৮০ রান। শারজিল খান করেন ৯০ রান। জবাবে ফখর জামানের ৬১ ও মোহাম্মদ হাফিজের ৭২ রানে ভর করে ৮ উইকেটে জয় পায় খাইবার পাখতুন।

 

শাহীন শাহ আফ্রিদি সর্বশেষ পাঁচ ম্যাচে মাত্র ৬.৮০ ইকোনমিতে নিয়েছেন ১৮ উইকেট! এ পাঁচ ম্যাচের মধ্যে তিনবারই শিকার করেছেন ৫ উইকেট করে। ক্যারিয়ারে এর আগে আরেকবার ৫ উইকেট পেয়েছিলেন টি-টোয়েন্টিতে।

 

এখন মাত্র ৫৬ ম্যাচে আফ্রিদি চারবার শিকার করলেন ৫ উইকেট। এর মধ্য দিয়ে তিনি ‘ফাইফার’ শিকারে বসেছেন সাকিব আল হাসানের পাশে।

তবে সাকিব সবমিলিয়ে খেলেছেন ৩০২ ম্যাচ।

 

টি-টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চ ৫ উইকেট শিকারি যাঁরা>

লাসিথ মালিঙ্গা (শ্রীলঙ্কা) – ২৮৯ ম্যাচে ৫ বার

শাহিন শাহ আফ্রিদি (পাকিস্তান) – ৫৬ ম্যাচে ৪ বার

ডেভিড উইস (দক্ষিণ আফ্রিকা) – ২০৩ ম্যাচে ৪ বার

সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ) – ৩০২ ম্যাচে ৪ বার

 

তিনবার করে ৫ উইকেট শিকার করেছেন অঙ্কিত রাজপুত (ভারত), অ্যান্ড্রু অ্যালিস (নিউজিল্যান্ড), টম স্মিথ (ইংল্যান্ড), উমর গুল (পাকিস্তান), মোহাম্মদ সামি (পাকিস্তান) ও জেমস ফকনার (অস্ট্রেলিয়া)।

শেয়ার করুন :