পাপনের হঠাৎ বৈঠকে যে আলোচনা হলো পাপনের হঠাৎ বৈঠকে যে আলোচনা হলো – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর ডেস্ক :: ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে ভরাডুবি হয়েছে বাংলাদেশের। দুই টেস্টের সিরিজে হতে হয়েছে হোয়াইটওয়াশড। এই বিপর্যয়ের পর বেশ তৎপরতা দেখা যাচ্ছে বিসিবির। এই সিরিজে বাজে পারফরম্যান্সের কারণ অনুসন্ধানে ও ভবিষ্যৎ করণীয় ঠিক করতে কাল বুধবার সন্ধ্যায় ও রাতে বিসিবি পরিচালক, নির্বাচক কমিটি ও দলের তিন সিনিয়র ক্রিকেটারের সঙ্গে আলোচনায় বসেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

 

বিসিবি প্রধানের গুলশানের বাসভবনে সন্ধ্যার বৈঠকে দু-একজন ছাড়া বোর্ড পরিচালকদের সবাই উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী, দুই নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন ও হাবিবুল বাশারও ছিলেন সেখানে। রাতে বোর্ড সভাপতি একান্তে কথা বলেন মুশফিকুর রহিম, তামিম ইকবাল ও মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে। ছুটিতে থাকায় এখানে ডাকা হয়নি সাকিব আল হাসানকে।

 

তিন সিনিয়রের সঙ্গে ৪৫ মিনিটের মতো কথা বলেন বিসিবি সভাপতি। রাত সাড়ে ৯টার দিকে শেষ হয় এই আলোচনা।

 

বোর্ড পরিচালক ও নির্বাচকদের সঙ্গে আলোচনা ছিল আরও অনেক দীর্ঘ। বৈঠক শেষে বিসিবি পরিচালক ও দেশের প্রথম টেস্ট অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয় সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে জানান আলোচনার বিষয়বস্তু।

 

তিনি বলেন, ‘আমরা খোলামেলা আলাপ-আলোচনা করেছি। এর আগের কিছু সিরিজ, বাংলাদেশ দলের ব্যাপার ছিল। সেখানে আমাদের ডেভেলপমেন্ট, এইচপি, সবকিছু নিয়েই আলোচনা হয়েছে। বিশেষ করে বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাম্প্রতিক সিরিজ, সবকিছু নিয়েই কথা হয়েছে।’

 

‘বেশ কিছু ব্যাপার আছে, আমাদের খেলোয়াড়দের প্রাপ্যতা, সামনের সিরিজগুলোয় বোর্ডের পলিসি কী হবে, এসব কথা হয়েছে। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার মতো কিছু হয়নি। কার চোখে কীভাবে ধরা পড়েছে, কার মাথায় কী এসেছে, কী করলে ভালো হতো, এসব আলোচনা হয়েছে। সবার মাথা থেকে সবার আইডিয়া শেয়ার করা হয়েছে।’

 

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের আগে বাংলাদেশ দল কোনো প্রস্তুতি ম্যাচ না খেলায় সমালোচনা হয়েছে প্রচুর।

এই প্রসঙ্গও উঠে এসেছে বলে জানালেন নাঈমুর, ‘গণমাধ্যমে আসছে, আপনারা প্রশ্ন করছেন যে কেন প্রস্তুতির জন্য বিসিএল বা জাতীয় লিগ আমরা করিনি। আমাদের ইচ্ছা ছিল, বোর্ডের ইচ্ছা ছিল বড় দৈর্ঘ্যের দু-একটি ম্যাচ আয়োজন করা। কিন্তু আমরা এটাই জানি যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক নয় কোভিডের কারণে। বায়ো-বাবল যেন লম্বা না হয়, যে কারণে টিম ম্যানেজমেন্ট চায়নি এতদিন বাবলে থাকতে।’

 

‘কিন্তু দিনশেষে সেখানে প্রস্তুতির ঘাটতি রয়েই গেল। এই ব্যাপারগুলো সামনে আরও গভীরভাবে চিন্তা করবে টিম ম্যানেজমেন্ট। সেটা আমাদেরও চিন্তা আছে।’

 

ওয়েস্ট ইন্ডিজের সিরিজের রেশ শেষ না হলেও শিগগিরই নতুন অভিযানে নামতে হবে ক্রিকেটারদের। ৩টি করে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির সিরিজ খেলতে আগামী মঙ্গলবার নিউজিল্যান্ডের উদ্দেশে দেশ ছাড়ার কথা বাংলাদেশ দলের। এই সিরিজ নিয়েও আলোচনা হয়েছে এ দিনের সভাগুলোয়।

 

নিউজিল্যান্ডে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন শেষে প্রথমে হবে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ, এরপর তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। ডানেডিনে প্রথম ওয়ানডে ২০ মার্চ। ২৩ মার্চ দ্বিতীয় ওয়ানডে ক্রাইস্টচার্চে এবং ২৬ মার্চ সিরিজের শেষ ওয়ানডে হবে ওয়েলিংটনে। ২৮ ও ৩০ মার্চ এবং ১ এপ্রিল টি-টোয়েন্টি ম্যাচগুলো হবে হ্যামিল্টন, নেপিয়ার ও অকল্যান্ডে।

 

নিউজিল্যান্ড সফরের দল ঘোষণা হওয়ার কথা ছিল কাল বুধবার। সেটি এখন পিছিয়ে চলে গেছে আগামীকাল শুক্রবার।

শেয়ার করুন :