তাসকিন দুর্দান্ত, ইমরুল-মাহমুদউল্লাহর ফিফটি তাসকিন দুর্দান্ত, ইমরুল-মাহমুদউল্লাহর ফিফটি – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর প্রতিবেদক :: উইকেট পেসারদের জন্য খুব বেশি কিছু ছিল না। কিন্তু তারপরও নতুন বলে আগুন ঝরানো বোলিং উপহার দিয়েছেন তাসকিন আহমেদ। জাতীয় দলের স্কিল ক্যাম্পে থাকা ক্রিকেটারদের নিয়ে আগের দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচে নিয়েছিলেন ৩ উইকেট। আজ শুরু হওয়া দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচেও সমানসংখ্যক উইকেট নিজের ঝুলিতে ভরেছেন এই পেসার।

 

মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে বৃষ্টিবিঘ্নিত দিনে খেলা হয়েছে ৭২ ওভার। ওটিস গিবসন একাদশ করেছে ৮ উইকেট ২৪৮ রান। টেস্ট দলের বাইরে থাকা ইমরুল কায়েস ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ করেছেন ফিফটি। ইমরুল ৫৯, মাহমুদউল্লাহ ৫৬ আর লিটস দাস ৪৪ রান করেছেন। ইনিংস বড় করার সুযোগ এ তিনজন নিজেরাই হারিয়েছেন।

 

রায়ান কুক একাদশের তাসকিন ছাড়াও পেসার মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন, সৈয়দ খালেদ আহমেদ ও আল আমিন হোসেন ছন্দে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছেন। নিজের সেরা ছন্দ খুঁজছেন বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলামও।

 

ম্যাচের প্রথম দিনের প্রথম সেশনে তাসকিন আহমেদ ছিলেন দুর্দান্ত। মেঘলা আবহাওয়ায় আগ্রাসী বোলিংয়ে পঞ্চম ওভারেই সাইফ হাসানকে ওয়াইড থার্ড স্লিপে তাইজুলের দারুণ ক্যাচ বানিয়ে ফেরত পাঠান।

 

পরে তাসকিনের অ্যাঙ্গেলে বেরিয়ে যাওয়া এক বলে নাজমুল হোসেন শান্ত ক্যাচ দেন দ্বিতীয় স্লিপে থাকা ইয়াসির আলী রাব্বির হাতে।

 

প্রথম স্পেলে তাসকিনের বোলিং ছিল এরকম: ৫-১-১৩-২।

 

তৃতীয় উইকেটে ইমরুল ও মাহমুদউল্লাহ গড়েন ৮৬ রানের জুটি। দ্বিতীয় স্পেলে তাসকিন ফেরার পর কাভার ড্রাইভে চার মারেন ইমরুল। পরে শর্ট বলে চোখধাঁধানো পুল শটে মারেন আরেকটি বাউন্ডারি।

 

তবে এ দ্বৈরথে তাসকিনেরই জয় হয়। তাঁর অফ স্টাম্পের বাইরের শর্ট বলে পুল করার চেষ্টায় টাইমিংয়ে গড়বড় করে বসেন ইমরুল কায়েস। ব্যাটের নিচের দিকে লেগে বোলারের দিকে যায় বল। ডাইভ দিয়ে দারুণ ক্যাচে বাঁহাতি ব্যাটসম্যানকে ফিরিয়ে দেন এ পেসার।

 

তবে ক্যাচ নিয়ে নাখোশ ছিলেন ইমরুল কায়েস। তিনি ইঙ্গিত দিচ্ছিলেন, বল তাসকিনের হাতে জমা হওয়ার আগেই মাটি স্পর্শ করেছে। কিন্তু দুই আম্পায়ার আলোচনা করে আউট বলে সিদ্ধান্ত দেন।

 

মাহমুদউল্লাহ ও লিটন দাসের জুটিও ছুটছিল। কিন্তু আল আমিনের শর্ট বলে বাজে শটে বিদায় নেন লিটন। ফেরার আগ অবধি সপ্রতিভ ছিলেন এই ড্যাশিং ব্যাটসম্যান।

 

আগের ম্যাচে ফিফটি করে আলগা শটে আউট হয়েছিলেন সৌম্য সরকার। আজও ২৬ রান করার পর তাইজুলকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে স্টাম্পড হয়ে ফিরে যান।

 

মোহাম্মদ মিঠুন নিরীহ দর্শন অফ স্পিনে আগের ম্যাচে দুই উইকেট নিয়েছিলেন। আজও শেষ দিকে চমক দেখান তিনি। এমনিতে উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান হলেও অফ স্পিনে ফিরিয়ে দেন নাঈম হাসান ও ইবাদত হোসেনকে।

 

সংক্ষিপ্ত স্কোর>>

ওটিস গিবসন একাদশ: ৭২ ওভারে ২৪৮/৮। সাইফ ৭, ইমরুল ৫৯, শান্ত ২, মাহমুদউল্লাহ ৫৬, লিটন ৪৪, সৌম্য ২৬, মোসাদ্দেক ২৯*, নাঈম ৮, ইবাদত ০, রুবেল ০*।

রায়ান কুক একাদশ: তাসকিন ১১-২-৪২-৩, সাইফ উদ্দন ১১-১-৪২-১, খালেদ ১১-১-৩১-০, আল আমিন ১০-৩-৩৬-১, তাইজুল ২৬-৪-৭৬-১, মিঠুন ৩-১-১০-২।

শেয়ার করুন :