টেস্ট নিয়ে স্বপ্নের ভেলায় সাইফউদ্দিন টেস্ট নিয়ে স্বপ্নের ভেলায় সাইফউদ্দিন – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর প্রতিবেদক :: পেস বোলিং অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ‘রঙিন’ ক্রিকেটে বাংলাদেশ জাতীয় দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। কিন্তু ‘সাদা’ ক্রিকেটে এখনও অভিষিক্ত হতে পারেন নি এই তরুণ।

 

সামনে শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়ার কথা বাংলাদেশের। তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজের জন্য বাংলাদেশের প্রাথমিক দলে আছেন সাইফউদ্দিন। টেস্ট নিয়ে এখন তাঁর স্বপ্নের ভেলা চলছে সুদূরে। সাদাপোশাকে লাল বল হাতে তিনি হয়ে ওঠতে চান দলের পারফর্মার।

 

মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন এখন অবধি খেলেছেন ২২ ওয়ানডে ও ১৫ টি-টোয়েন্টি। সংখ্যাটা আরও বেশি হতে পারতো। কিন্তু চোটের কারণে তাঁকে বেশ কিছুটা সময় থাকতে হয় মাঠের বাইরে।

 

করোনাকালের ‘বন্দিজীবন’ কাটিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা অনুশীলনে ফিরেছেন অনেক দিন হলো। স্কিল ক্যাম্পের দল ঘোষণার পর আজ চার দিন হয়েছে, দলের সিংহভাগ ক্রিকেটার মিরপুর শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুশীলন করছেন।

 

ওপেনার সাইফ হাসান করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর ১০ জনকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছিল। তাঁদের মধ্যে পেসার আবু জায়েদ চৌধুরী রাহীও আক্রান্ত বলে শনাক্ত হয়েছেন। এখন আইসোলেশনে থাকা ক্রিকেটাররা বাদে বাকিরা অনুশীলনে মগ্ন।

 

অনুশীলন করছেন ফেনীর ছেলে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনও। টেস্টের জন্য প্রাথমিক দলে ডাক পেয়ে উচ্ছ্বসিত এই অলরাউন্ডার। টেস্ট খেলাটা যে তাঁর স্বপ্ন, সে কথাই জানিয়ে সুযোগের অপেক্ষায় তিনি।

 

‘সব ক্রিকেটারেরই টেস্ট ক্রিকেটার হওয়ার স্বপ্ন থাকে। যেহেতু প্রথমবারের মতো টেস্ট স্কোয়াডে ডাক পেয়েছি, সুযোগ পেলে নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করবো।’

 

নিজের বোলিং নিয়ে উন্নতির সুযোগ দেখছেন সাইফউদ্দিন। চেষ্টা করছেন সেই উন্নতিটুকু করার।

 

‘দীর্ঘ ৬-৭ মাস পর দলের সাথে মিরপুরে অনুশীলন করছি। আমি খুবই আনন্দিত। উৎসাহ নিয়ে সেন্ট্রাল উইকেটে বোলিং করেছি। সামনে আরও কিছু দিন সময় পাব। যতোটা উন্নতি করা যায় সেই চেষ্টা করবো।’

 

‘করোনার কারণে ফেনীতে একাই ছিলাম, ফলে ফিটনেসে বেশি সময় দিতে পেরেছি। মানসিকভাবে নিজেকে আরও দৃঢ় করেছি। কিন্তু ফিটনেসের কাজ করলেও স্কিলের দিক থেকে অন্যদের চেয়ে পিছিয়ে গেছি। পাকার উপর কোনোভাবে ব্যাটিং করলেও বোলিং একদমই করা হয়নি।’

 

ফেনীতে থাকার সময় সাইফউদ্দিন সিমেন্ট-সুরকি দিয়ে পিচ তৈরি করে ব্যাটিং অনুশীলন চালিয়ে গেছেন। বোলিংয়ে সময় দিতে পারেন নি। এখন বোধ করছেন অস্বস্তি।

 

‘আজকেও বোলিং করলাম, গত দুই দিনও বোলিং করলাম…আগের ছন্দ ফিরে পেতে সময় লাগবে। কিছুটা অস্বস্তি বোধ করছি। তারপরও আশাবাদী, আরও কয়েকদিন বল করতে পারলে হয়তো আগের রূপে ফিরে আসতে পারব।’

 

পিঠের ইনজুরির জন্য ছয় মাস ভুগে সাইফউদ্দিন যখন খেলায় ফিরলেন, তখনই আঘাত হানলো করোনা। কয়েকটি ম্যাচ খেলার পরই তাই সব বন্ধ। মাঝের ওই কয়েকটি ম্যাচ বাদ দিলে সাইফউদ্দিন প্রায় এক বছর ধরে ক্রিকেটের বাইরে।

 

ইনজুরি থেকে এখন মুক্ত থাকলেও ভয়টা রয়ে গেছে এই পেস বোলিং অলরাউন্ডারের মনে।

 

‘সবসময় ইন্জু‌রিটা নিয়ে চিন্তা থাকে। আমার মেজর ইঞ্জুরি আছে, অনেক বছর ধরে বয়ে চলেছি। সবচেয়ে বড় কথা, এই ইঞ্জুরির কারণে ছয় মাস মাঠের বাইরেও ছিলাম। ফিট হয়ে আসার পর কয়েক ম্যাচ খেলে আবার মহামারি। আমার জন্য প্রত্যাবর্তন কঠিন। প্রায় এক বছরের মতো আমি মাঠের বাইরে। যত তাড়াতাড়ি ছন্দ ফিরে পাবো, আমার জন্য ততোই ভালো। যতো তাড়াতাড়ি ম্যাচ ফিটনেস ফিরিয়ে আনতে পারি, দলের জন্যও ভালো।’

 

‘এখন আমার মূল টার্গেট নিজেকে ফিট করা আর স্কিলের উন্নতি করা। স্কিল নিয়েও কিছুটা চিন্তিত। প্রায় ৬-৭ মাস ঠিকমতো ব্যাটিং-বোলিং করা হয়নি। তারপরও যে সময় আছে, এই সময়ে নিজেকে আরও মেলে ধরার চেষ্টা করব।’

শেয়ার করুন :