টেস্টে কুড়ি বছর: আশার সকাল হারায় হতাশার বিকেলে! টেস্টে কুড়ি বছর: আশার সকাল হারায় হতাশার বিকেলে! – SportsTour24

মান্না চৌধুরী :: বিশ বছর মানে তো সদ্য কৈশোর পেরোনো এক যুবক। বিচিত্র পৃথিবীতে নিজেকে জানার, নিজেকে গড়ার কঠিন সংগ্রামের শুরু। তাঁর কাছে কতটুকুই বা আশা করা যায়। তবু আমরা আশার ফানুশ উড়িয়ে প্রত্যাশার একটা চাপ তৈরি করি। মাশরাফি, সাকিব, তামিম, মুশফিকরা সেই চাপ নিতে পারলে তো! চাপে ভেঙ্গে পড়ে বারবার হাতের মুঠো থেকে বেরিয়েছে জয়। অনেক আশার সকাল হারিয়েছে হতাশার বিকেলে।

 

পাঁচ দিনের ক্রিকেটে জয় দেখতে পাওয়া জয়গুলো ধরতে পারলে দুই অঙ্কের সংখ্যাটা আরো বড় হতো। ভালো ব্যাটিংয়ের পর বোলিং ঠিকঠাক হয় না, ফিল্ডিংয়ে চমৎকার সূচনার পর ব্যাটিং লাইন খড়কুটোর মতো ভেঙ্গে যায়!

 

এ যেন যৌবনে এসেও শিশুর মতো সব আচরণ। শিশুকালে যেমন হাঁটতে গিয়ে পা ঠিকমতো আগায় না, পড়ে যাওয়ার ভয় থাকে; আমাদের ক্রিকেটের অবস্থাও হয়েছে ঠিক তাই। একটু সামনে গেলে পিছিয়ে পড়ি অনেক দূরের পথ। আশার আলো জ্বালিয়ে সেটা নিভিয়ে দিতে পারি শিশুসুলভ এক ফুঁতে!

 

এভাবে আসলে বড় দলগুলোকে মাঝেমধ্যে চোখরাঙানো যায়, কিন্তু প্রকৃত একটা টেস্ট দল হয়ে ওঠা যায় না। তাই দুই দশক পেরিয়েও সাফল্যের খাতা খালি দেখায়। পাতায় পাতায় যেন কালো কালিতে লেখা আছে ব্যর্থতার সব গল্প। ১৪ জয় আর ১৬ ড্রয়ের বিপরীতে ৮৯ হার!

 

পরাজয়গুলোও বেশ বড়। বেশ কিছু ম্যাচে আমরা প্রতিপক্ষকে দুইবার ব্যাটিংই করাতে পারিনি, কপালে জুটেছে ইনিংস পরাজয়ের লজ্জা। গেল বছর আফগানিস্তানের কাছে শোচনীয় পরাজয় তো আছেই। বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে মাত্রই শিশু আফগানিস্তানের সাফল্যের পরিসংখ্যান একশতে একশো! বড় দলগুলোর শুরুর দিকের যাত্রা, টেস্ট খতিয়ান উঠে আসতে পারে যুক্তি হিসেবে। কিন্তু অন্যের রূপ দেখার আগে আয়নায় নিজের চেহারা দেখাই তো বুদ্ধিমানের কাজ। দিনশেষে তো আমি কী করলাম সেটিই বড় হয়ে উঠে।

 

টেস্ট ক্রিকেটে পথচলার দুই দশক পেরিয়ে আজ অনেকেই স্মৃতিকাতর হবেন। বিসিবিতে বিশ বছর পূর্তির একটা বড় কেকও হয়তো কাটা হবে। সাবেক আর বর্তমান মিলে গল্প, আড্ডায় মেতে উঠবে মিরপুর। আসলে উৎসব, আয়োজন তো হওয়ার কথা সারা দেশে। সাদা পোশাকে লাল-সবুজের জন্মদিনের উৎসবের রঙ ছড়ানোর কথা উত্তর থেকে দক্ষিণে, পূর্ব থেকে পশ্চিমে। কিন্তু ওই যে বেরসিক পরিসংখ্যান। কোটি মানুষের মনে উদয় হয়ে সে দশ-এগারোয় রঙিন হতে দেয় না বাংলাদেশকে।

 

ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা, নিউজিল্যান্ড এখনো অধরা। অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ডকে দেশের মাটিতে একবার করে হারিয়েছে বাংলাদেশ। শ্রীলংকার বিপক্ষে পাঁচ দিনের ক্রিকেটে একমাত্র জয় ২০১৭ সালে। কলম্বোয় নিজেদের শততম টেস্টটা বাংলাদেশ জিতেছিল। এর বাইরে ১৪ জয়ের বাকিগুলো দুর্বল হয়ে পড়া জিম্বাবুয়ে আর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে।

 

তাই সাদা পোশাকে লাল বলের ক্রিকেটে সেভাবে আগ্রহ নেই বাংলাদেশে। আইসিসির দশম টেস্ট খেলুড়ে দেশে উচ্ছ্বাস, মাতামাতি বলতে পঞ্চাশ আর বিশ ওভারের ক্রিকেট নিয়ে। এশিয়া কাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে দুই রানের পরাজয়, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতের কাছে সেই ট্র্যাজিক হার। স্মৃতির জানালা খুলে এসব উঠে আসে আলোচনায়। রঙিন বদলে সাদা পোশাকে ফিরলেই সাকিব, তামিমরা বাংলায় হয়ে উঠেন অচেনা! এখানে ফলটা যে মাঠে নামার আগেই তৈরি হয়ে যায়! এই ক্রিকেটে কীভাবে আশার বাতি জ্বালিয়ে রাখে ১৬ কোটি?

শেয়ার করুন :