ওয়াসিম-ওয়াকারদের সঙ্গে আছেন মাশরাফিও ওয়াসিম-ওয়াকারদের সঙ্গে আছেন মাশরাফিও – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর ডেস্ক :: দলের পেস বোলার, তিনিই আবার দলের অধিনায়ক। এমন দ্বৈত ভূমিকায় খুব বেশি ক্রিকেটারকে দেখা যায়নি। আবার যাঁরা এমন দায়িত্ব পালন করেছেন, তাঁদের সবাই সফলতার মুখ দেখেননি।

 

এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম আছেন কয়েকজন। ক্রিকেটভিত্তিক জনপ্রিয় ওয়েবসাইট ক্রিকইনফো পেস বোলার ও একইসাথে অধিনায়ক হিসেবে যাঁরা সফল হয়েছেন, তাঁদের একটি ছোট্ট তালিকা করেছে।

 

সেই তালিকায় আছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের গ্রেট কোর্টনি ওয়ালশ, পাকিস্তানের গ্রেট ওয়াসিম আকরাম, ওয়াকার ইউনুস, বাংলাদেশের মাশরাফি বিন মুর্তজা, ইংল্যান্ডের কিংবদন্তি বব উইলিস, জিম্বাবুয়ের হিথ স্ট্রিক, শ্রীলঙ্কার লাসিথ মালিঙ্গারা।

 

তালিকায় ইমরান খান, ইয়ান বোথাম, শন পোলক, অ্যান্ড্রু ফ্লিনটফের নাম না দেখে অনেকেই বিস্ময় প্রকাশ করতে পারেন। তবে বিষয় হচ্ছে, যাঁদের ব্যাটিং গড় ৩০ এর ওপরে, এমন পেস বোলিং অলরাউন্ডারদের এ তালিকায় রাখেনি ক্রিকইনফো।

 

তালিকায় যাঁরা স্থান পেয়েছেন, তাঁদের সম্পর্কে বিস্তারিত উল্লেখ করেছে ক্রিকইনফো। বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি সম্পর্কেও লিখা হয়েছে।

 

মাশরাফি টেস্ট অধিনায়কত্ব পেয়ে ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যান। কিন্তু প্রথম ম্যাচেই পড়ে যান চোটে। সেই ম্যাচে জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ।

 

ইনজুরি কাটিয়ে দলে ফিরে পরে যখন অধিনায়কত্ব ফিরে পান মাশরাফি, তখন আর তিনি টেস্ট খেলছেন না। তবে ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিয়ে নিয়ে যান অন্য উচ্চতায়। ওয়ানডের রেকর্ড মাশরাফিকে নিয়ে যায় বিশ্বসেরাদের কাতারে।

 

৮৮টি ওয়ানডে ম্যাচে টাইগার-বাহিনীকে নেতৃত্ব দিয়ে মাশরাফি উইকেট নিয়েছেন ১০২টি। ৩৬ ম্যাচে হারলেও জিতেছেন ৫০ ম্যাচে! সাফল্যের হার অনেক বেশি তাঁর।

 

মাশরাফি দলকে ২৮টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়ে ২০ উইকেট শিকার করেছেন। জয় পেয়েছেন ১০ ম্যাচে, হেরেছেন ১৭টিতে।

 

ক্রিকইনফো বলছে, শুধু পরিসংখ্যান দিয়ে মাশরাফির অধিনায়কত্বের প্রভাব প্রকাশ করা সম্ভব নয়। বাংলাদেশ ২০১৪ সালে টানা হারের বৃত্তে ছিল। হতাশা ঘিরে ধরেছিল দলকে। সেখান থেকে এক বছরের মাথায় বাংলাদেশকে জয়ের ধারায় নিয়ে এসে মাশরাফি পৌঁছে দেন বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে। এরপর ২০১৭ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে টাইগাররা খেলে সেমিফাইনালে।

 

শুধু তাই নয়, ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ যেখানে ৯ বা ১০-এ থাকতো, দলটি মাশরাফির অধিনায়কত্বে ওঠে আসে ৭-এ।

শেয়ার করুন :