আত্মবিশ্বাসী লিটন দাসের ‘অতি বিশ্বাস’ নেই আত্মবিশ্বাসী লিটন দাসের ‘অতি বিশ্বাস’ নেই – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর প্রতিবেদক :: গেল মার্চের কথা মনে আছে? লিটন দাসের তাণ্ডবলীলা? কী ভয়াবহ ঝড়টাই না বইয়ে দিয়েছিলেন জিম্বাবুয়ের বোলারদের ওপর! তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে করেন দুটি বিধ্বংসী সেঞ্চুরি। প্রথম ম্যাচে ১২৬ এর পরে শেষ ম্যাচে রেকর্ডগড়া ১৭৬! শুধু ওয়ানডে সিরিজই নয়, টি-টোয়েন্টি সিরিজের দুই ম্যাচেই করেছিলে ফিফটি। ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টি উভয় সংস্করণের সিরিজেই তিনি হয়েছেন সেরা।

 

লিটন দাস তখন আত্মবিশ্বাসে টইটম্বুর। দারুণ পারফরম্যান্সকে ধরে রাখার পণ তাঁর মধ্যে। কিন্তু হায়! এলো করোনাভাইরাসের হানা, বন্ধ হয়ে গেল ঘরোয়া-আন্তর্জাতিক সব ধরনের ক্রিকেট।

 

পেরিয়েছে পাঁচ মাস। দীর্ঘ এই সময়ে বিরক্তির শেষ ছিল না লিটস দাসের। অবশেষে তিনি ফিরেছেন মাঠের সবুজ গালিচায়। ফিরেছে তাঁর স্বস্তি। আর চোখ সামনের দিনে ভালো করার দিকে। জিম্বাবুয়ে সিরিজের দারুণ খেলার আত্মবিশ্বাস নিয়েই সামনে এগিয়ে যেতে চান এই ওপেনার। তবে তাঁর মধ্যে নেই ‘অতি বিশ্বাসের’ আস্ফালন।

 

ঢাকায় মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সোমবার অনুশীলন করেন লিটন দাস। আজ থেকে সেন্টার উইকেটে অনুশীলনের সুযোগ পাচ্ছেন ক্রিকেটাররা। লিটনও পেলেন সেই সুযোগ।

 

স্টেডিয়ামে অনুশীলনে ফিরতে পেরে স্বস্তি লিটনের কণ্ঠে, ‘মিরপুরে ফিরতে ফেরে অনেক ভালো লাগছে। অনেক দিন পর ব্যাটিং করতে পারছি। এটা অনেক স্বস্তি দিচ্ছে । সামনে ক্রিকেট আছে। চেষ্টা করবো সামনে যে সিরিজটা আছে সেটি সামনে রেখে এখান থেকে প্রস্তুতি নিয়ে যেন ভালো কিছু করতে পারি। এতোদিন পর মাঠে এসে সবার সঙ্গে দেখা হওয়ায় ভালো লাগছে। যাদের সঙ্গে খেলি তাদের কাছে পাচ্ছি, কথাবার্তা হচ্ছে। এটা অনেক ভালো লাগছে।’

 

‘নিয়মিত খেলছিলাম। হঠাৎ একটা বিরতি পড়ে গেছে। বাসায় যা করা যায়, মাঠে তো একটা পার্থক্য থাকেই। এদিক দিয়ে একটু কষ্ট লেগেছে। অনেক দিন মাঠে যেতে পারছি না, খেলতে পারছি না।’

 

বিরতির সময়টা লিটন কাটিয়েছেন নিজের ব্যাটিংয়ের উন্নতি করার চিন্তায়, ‘ওই সময় আমি আমার আগে ব্যাটিং দেখেছি যে কোথায় কোথায় উন্নতি করা যায়। কোচদের সঙ্গেও কথা বলেছি, কী করলে কোথায় উন্নতি করা যায়। কিছু ড্রিলও করেছি বাসায়।’

 

জাতীয় দলের ফিল্ডিং কোচ হতে আগ্রহী রাজিন সালেহ

 

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অতিমানবীয় ব্যাটিংয়ের পর দীর্ঘ বিরতি পড়ায় ‘পিছিয়ে থাকার’ কথা বলছেন লিটন। তবে তাঁর আত্মবিশ্বাস যে টলে যায়নি, বলছেন সেটাই।

 

‘বিরতির কারণে সবাই একটু পিছিয়ে থাকবে। তবে আগে যে সিরিজ খেলেছি, সেটির আত্মবিশ্বাস আছে। তবে অতি বিশ্বাস নেই আমার। প্রতিটি ম্যাচই অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আউট হওয়ার জন্য একটি বলই যথেষ্ট। প্রতিটি বলই মনোযোগ দিয়ে খেলতে হয়। আগের সিরিজটা যে মনযোগ দিয়ে শেষ করেছি সেটা যেন মাঠে আবার ফিরিয়ে আনতে পারি। আমার মনে হয় মনোযোগ ও নিজের চ্যালেঞ্জটা যদি আবার নিতে পারি যে আমাকে ভালো কিছু করতে হবে তাহলে সম্ভব ভালো কিছু করা।’

 

সামনেই শ্রীলঙ্কা সফর। সেপ্টেম্বর শেষ সপ্তাহে লঙ্কাদ্বীপে উড়াল দেবেন মুমিনুল হকরা। সেখানে মাসখানেকের প্রস্তুতির পর তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। প্রথম টেস্ট ২৪ অক্টোবর শুরু হওয়ার কথা। সেই সিরিজের দিকেই চেয়ে আছেন লিটন দাস।

শেয়ার করুন :