অনিশ্চিত সফর, বিরতিতে তামিম-মুশফিকরা অনিশ্চিত সফর, বিরতিতে তামিম-মুশফিকরা – SportsTour24

স্পোর্টসট্যুর প্রতিবেদক :: অথচ কথা ছিল, আগামীকাল রোববার শ্রীলঙ্কাগামী বিমানে ওঠবে বাংলাদেশ। কিন্তু কীসের কী! সফর নিয়েই এখন তৈরি হয়েছে অনিশ্চয়তা। এই অনিশ্চয়তার মধ্যে তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিমরা পাচ্ছেন তিন দিনের অনুশীলন বিরতি। এই সময়ের মধ্যে শ্রীলঙ্কা থেকে ইতিবাচক বার্তা পাওয়ার আশা করছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

 

২৭ সেপ্টেম্বর শ্রীলঙ্কায় গিয়ে দীর্ঘ এক মাসের অনুশীলন করতে চেয়েছিল বাংলাদেশ। এ সময়ে নিজেদের খরচেই ক্যাম্প করার কথা জানিয়েছিল বিসিবি। এরপর ২৪ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়ার কথা ছিল তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ।

 

কয়েক দিন আগে শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট বোর্ডের (এসএলসি) পক্ষ থেকে বিসিবিকে জানানো হয়, বাংলাদেশ দল সেখানে সফরে যাওয়ার পর ১৪ দিনের কড়া কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। হোটেল ছেড়ে বেরোনো যাবে না, অনুশীলন করা যাবে না। আরও কিছু শর্ত দেওয়া হয় স্বাগতিকদের পক্ষ থেকে।

 

এসব শর্ত দেখে চক্ষু চড়কগাছ হয় বিসিবির। নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে ১৪ সেপ্টেম্বর বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানিয়ে দেন, শর্ত মেনে শ্রীলঙ্কা সফরে যাবে না বাংলাদেশ। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে কী চাওয়া হচ্ছে, সেটাও জানিয়ে দেওয়া হয় লঙ্কানদের।

 

এরপর থেকেই চলছে বিসিবির অপেক্ষা। কিন্তু আজ অবধি শ্রীলঙ্কা থেকে কোনো ইতিবাচক বার্তা আসেনি। সফর নিয়ে অনিশ্চয়তা থাকলেও ক্রিকেটারদের অনুশীলন চালিয়ে নেওয়া হয়েছে। দেওয়া হয়েছে ২৭ সদস্যের প্রাথমিক দলও। ২০ সেপ্টেম্বর থেকে ‘জৈব-সুরক্ষা বলয়’ তৈরি করে টিম হোটেলে রাখা হয়েছে ক্রিকেটারদের।

 

আজ শনিবার বিসিবির পরিচালক ও ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান আকরাম খান জানান, যেহেতু সফর পিছিয়ে যাচ্ছে, সেহেতু ক্রিকেটারদের অনুশীলনে তিন দিনের বিরতি দেওয়া হয়েছে।

 

‘আমরা তিন দিনের বিরতি দিয়েছি। তিন দিন পর আবার অনুশীলন চলবে। আগামী ২-৩ দিনের মধ্যে আমরা আশা করছি শ্রীলঙ্কা থেকে কিছু জানতে পারবো।’

 

আকরাম খান বলছেন, এ সময়ের মধ্যে লঙ্কানরা ইতিবাচক কিছু জানালে ৭-১০ অক্টোবরের মধ্যে মুমিনুল হকরা সেখানে উড়াল দেবেন।

 

‘যেহেতু আমাদের সফর পিছিয়েই যাচ্ছে, হাতে সময় আছে যথেষ্ট। আরও কিছু দিন অপেক্ষা করতেই পারি। যদি সব ইতিবাচকভাবে এগিয়ে যায়, তাহলে আগামী মাসের ৭ থেকে ১০ তারিখের মাঝে আমরা যেতে পারি। যেহেতু ওদের প্রিমিয়ার লিগটা (এলপিএল) পিছিয়ে যাচ্ছে, কাজেই ওদের কাছেও সময় আছে।’

 

বিসিবি সভাপতি আগে জানিয়েছিলেন, বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কার জবাবের জন্য খুব বেশি অপেক্ষা করবে না। কিন্তু বিসিবি এখনও অপেক্ষায়। আরও অপেক্ষা করতে রাজি। বাংলাদেশ কী সফরে যেতে মরিয়া?

 

আকরামন খান বলছেন, ‘আমরা মরিয়া নই। ব্যাপারটি হলো, এখন আমাদের হাতে সময় আছে, ওদের হাতেও আছে। ওরাই বারবার অনুরোধ করে আমাদেরকে বলছে যে ওদের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে বোঝাতে পারবে। এমন নয় যে ওরা চাচ্ছে না, আমরা জোর করে যাচ্ছি। মরিয়া হলে তো ওদের শর্ত মেনেই যেতে পারতাম। আমাদের তাড়াহুড়ো নেই।’

 

‘আমাদের কাছে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার হলো ক্রিকেটারদের ভালো থাকা, ওরা যাতে মানসিকভাবে ক্লান্ত হয়ে না পড়ে এবং ওদের কাছ থেকে সেরা পারফরম্যান্সটা যেন বের করে আনতে পারি। গিয়ে যেন ভালো পারফর্ম করতে পারি, সেটি নিশ্চিত করার জন্য যা দরকার, আমরা করবো।’

 

যদি লঙ্কা সফর না হয়, সেক্ষেত্রে কী করণীয় তা নির্ধারণ করে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিসিবির এই পরিচালক।

 

‘প্র্যাকটিসে তিন দিনে বিরতি দিয়েছি আমরা, এর মধ্যে ফল চলে এলে তো হলোই। ক্রিকেটাররা টানা কিছুদিন অনুশীলন করলো, এমনিতেও বিরতি দরকার ছিল। আর সফর না হলে তো সভাপতি বলেছেন, একটা ঘরোয়া টুর্নামেন্ট হবে। কাজেই আমাদের প্ল্যান এ, বি, সি, সব করাই আছে।’

শেয়ার করুন :